৭ ঘণ্টার কম ঘুম আর নয়!

শারীরিক সুস্থতার সাথে ঘুমহীনতার গভীর সম্পর্ক আছে। বর্তমানে আলঝেইমার্স, ক্যান্সার, কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ, ওবেসিটি, ডায়াবেটিস এবং আত্মহত্যাসহ যেসব রোগ মানুষের জীবন কেড়ে নিচ্ছে সবগুলোর সাথেই সম্পর্ক আছে ঘুমহীনতার। এছাড়া বিষণ্নতা বা অবসাদের মত বিষয়ের সূচনাও ঘুমহীনতা থেকে হয়।

বিবিসিতে প্রকাশিত এক সংবাদে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নায়ুবিজ্ঞান ও মনোবিজ্ঞান বিষয়ের অধ্যাপক ম্যাথিঊ ওয়াকার বলেছেন, ‘যদি আপনার দীর্ঘ ও সুস্থ জীবনযাপন করার আগ্রহ থাকে তবে আপনাকে রাতের ভাল ঘুমের জন্য বিনিয়োগ করা উচিত’।

আমরা পর্যাপ্ত বিশ্রাম না নিলে শরীর ও মস্তিষ্ক কাজ বন্ধ করে দেয়। দৈনিক কমপক্ষে সাতঘন্টার কম সময় ঘুমালে শরীর ও মস্তিষ্কে তার প্রভাব নিজে থেকেই অনুভব করা যায়।

তবে ঘুম হতে হবে স্বাভাবিক, ঘুমের ওষুধ নিয়মিত সেবন করলে তা থেকে হতে পারে ক্যান্সার সংক্রমণ।

কোনটায় বেশি পুষ্টি, ভাত না রুটিতে?

কথায় আছে ভাতে-মাছে বাঙালি। কেউ কেউ ভাত খেতে এত ভালোবাসেন যে পারলে তিন বেলাই ভাত খান। অনেকে আবার ভাত খেতে একেবারেই ভালোবাসেন না বলে রুটিকেই প্রধান খাবার হিসেবে বেছে নিচ্ছেন। কিন্তু সেটাও কি ঠিক? কোনটা বেশি উপকারী? জেনে নিন ভাত ও রুটির মধ্যে পুষ্টি উপাদানগত পার্থক্য।

৩০ গ্রাম ভাতের ক্ষেত্রে কার্বোহাইড্রেট থাকে ২৩ গ্রাম। আবার ৩০ গ্রাম আটার ক্ষেত্রে কার্বোহাইড্রেট থাকে ২২ গ্রাম। ভাতে প্রোটিন থাকে ২ গ্রাম আর আটা বা রুটির ক্ষেত্রে প্রোটিন থাকে ৩ গ্রাম। ভাতে ফ্যাট থাকে ০.১ গ্রাম এবং আটা বা রুটিতে ফ্যাট থাকে ০.৫ গ্রাম। ভাতে ফাইবার থাকে ০.১ গ্রাম এবং আটা বা রুটিতে থাকে ০.৭ গ্রাম।

ভাতে আয়রন থাকে ০.২ মিলিগ্রাম এবং রুটিতে থাকে ১.৫ মিলিগ্রাম। একই পরিমাণ ভাতে ক্যালসিয়াম থাকে ৩ মিলিগ্রাম এবং আটাতে বা রুটিতে থাকে ১২ মিলিগ্রাম। ভাতে এনার্জি থাকে ১০০ ক্যালোরি ও আটাতেও থাকে ১০০ ক্যালোরি।

ভাত এবং রুটি দুটিতেই আছে প্রচুর ফলেট যা নতুন কোষ গঠনে সাহায্য করে এবং রক্তে অক্সিজেন সরবরাহ করে। শিশুর জন্মগত ত্রুটি ঠেকাতেও কার্যকর। সেই কারণে গর্ভবতী মায়েদের রুটির থেকে ভাত বেশি খাওয়া ভালো।

রুটি ও ভাতে আয়রনের পরিমাণ সমান হলেও ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম ও পটাসিয়ামের পরিমাণ রুটির তুলনায় ভাতে কম।

সব মিলিয়ে ভাত, রুটি দুটিতেই রয়েছে উপকার। আর চিকিৎসকরা মনে করেন, ভাত ও রুটি মিশিয়েই খাওয়া উচিত। দুটি খাবারই শরীরের কোন না কোন প্রয়োজন পূরণ করে। একবেলায় রাখতে পারেন ভাত, অন্য বেলায় রাখুন রুটি।

তবে মনে রাখবেন অতিরিক্ত কোনটাই ভাল নয়। এ দুটি খাবারের পরিমাণ কম রেখে এর সঙ্গে বেশি বেশি সবজি রাখুন। তবে আপনার স্বাস্থ্যের সব রকম চাহিদা পূরণ হবে।

About redianbd

Check Also

আপনার ৫ মাস বয়সী ছোট্ট শিশুর যত্নের জন্য দরকারী কিছু পরামর্শ।

যতক্ষণ না আপনার বাচ্চা একজন প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে উঠছে, ততক্ষণ তার সমস্ত প্রয়োজনীয় যত্ন দরকার হবে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.