ঢাবিতে চান্স পাওয়া জমজ দুই বোনের দায়িত্ব নিলেন ডিসি

গত কয়েকদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা যাচ্ছে দুই যমজ বোনের ছবি। তাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে অনুরোধ করেছেন অনেকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চান এই দুই তরুণী। সেই স্বপ্ন পূরণে নিজেদের দায়িত্ব যথাযথ পালনও করেছেন তারা।

ভর্তি পরীক্ষা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের অধীন ‘গ’ ইউনিটে মেধা তালিকায় স্থানও করে নিয়েছেন দু’জনই। তবুও তাদের স্বপ্নের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে। স্বপ্ন পূরণের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে টাকা। জানা গেছে, এই দুই মেধাবী যমজ বোনের নাম সাদিয়া আক্তার সুরাইয়া ও নাদিরা ফারজানা সুমাইয়া। বাগেরহাটের হরিণখানা গ্রামের মো. মহিদুল হাওলাদার ও শাহিদা বেগমের এ দুই মেয়ে পরিবারের আর্থিক অসচ্ছলতার মধ্যেও নিজেদের লেখাপড়া চালিয়ে নিয়ে গেছেন।

বাগেরহাট সরকারি পিসি কলেজ থেকে পরীক্ষা দিয়ে এবার এইচএসসিতে দুই বোনই গোল্ডেন এ-প্লাস পান। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে মেধা তালিকায় স্থানও করে নেন সুরাইয়া ও সুমাইয়া। তাদের ক্রম যথাক্রমে ১১৬৩ ও ৮৪৬। এখন অর্থাভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও পড়াশোনা চালিয়ে নেয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় ভুগছেন তারা।

এদিকে সুরাইয়া ও সুমাইয়ার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার দায়িত্ব নিয়েছেন বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ। শনিবার দুপুরে বাগেরহাট সার্কিটে হাউসে ওই দুই শিক্ষার্থী ও তার মা সাহিদা বেগমের সঙ্গে কথা বলে তিনি এই আশ্বাস দেন।

ঢাবিতে ভর্তির সুযোগ পেয়ে চিন্তায় পড়েছেন যমজ দুই বোন

সাদিয়া আক্তার সুরাইয়া ও নাদিরা ফারজানা সুমাইয়া। তারা যমজ বোন। দুজনেই মাধ্যমিকে পেয়েছেন এ প্লাস। উচ্চ মাধ্যমিকে পেয়েছেন গোল্ডেন এ প্লাস। এখন সুযোগ পেয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদে পড়ার।

দিনমজুর বাবা মহিদুল হাওলাদার আর গৃহিণী মা শাহিদা বেগমের যমজ এ সন্তান প্রাচ্যের অক্সফোর্ডে পড়ার সুযোগ পেলেও ভর্তিসহ পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার সামর্থ্য নেই তাদের। উচ্চ শিক্ষার সুযোগ মিললেও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে স্বপ্ন পূরণের। তারা বলছেন, অর্থনৈতিক সমস্যাই তাদের সামনে এগিয়ে যাওয়ার বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (গ ইউনিট) বাণিজ্য অনুষদে সুমাইয়ার মেধাক্রম ৮৪৬ এবং সুরাইয়ার মেধাক্রম ১১৬৩। বাগেরহাট জেলা সদরের পৌরসভার হরিণখানা গ্রামে বেড়ে ওঠা তাদের। তাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির শেষ দিন ৩১ অক্টোবর।

সুমাইয়া ও সুরাইয়া বলেন, শৈশব থেকেই দারিদ্র্যতার মধ্যে বেড়ে উঠেছি। পারিবারিক অসচ্ছলতার কারণে মাধ্যমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত আমরা টিউশনি করিয়ে পড়াশোনার খরচ জোগাড় করেছি। স্বপ্ন দেখেছি যেন আমরা দুই বোন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো স্বনামধন্য একটি প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করতে পারি।

তাদের মা শাহিদা বেগম বলেন, অর্থনৈতিক দৈন্যদশার মধ্যে দুই মেয়েকে পড়ালেখা করিয়েছি। ওরা পড়ালেখা করতে চায়। ওরা সুযোগ পেয়েছে আমারও ইচ্ছা পড়ালেখা চালিয়ে যাক। তবে আমার যে সামর্থ্য তাতে দুইজনকে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো অনেক কষ্ট। তারপরও চেষ্টা করছি সকলের সাহায্য নিয়ে যদি দুজনকে ভর্তি করতে পারি। তাহলে পড়াশোনা চালিয়ে নিতে পারবে ওরা।

দুই বোনকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করার জন্য যে পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে সেই পরিমাণ টাকা জোগাড় করতে পারছি না আমরা। এ কারণে পরিবারের সবাই চিন্তাই আছি।

ভর্তি প্রস্তুতিতে সহযোগিতা করেছেন ইউসুফ আলী শিমুল। শিমুল বলেন, ওরা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাবার পর তাদের বাড়িতে প্রথম যখন গেছি আমার কান্না পাচ্ছিল বাড়ির অবস্থা দেখে। ভাবছিলাম এমন অসচ্ছল পরিবার থেকে সৃষ্টিকর্তার রহমত আর ওদের আপ্রাণ প্রচেষ্টা ছাড়া প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাওয়া সম্ভব না।

আমি তাদের কিছুদিন গাইড দেবার সুযোগ পেয়ে নিজেকে খুবই সৌভাগ্যবান মনে করছি। আমার চাওয়া টাকার অভাবে যেন এমন মেধাবীদের স্বপ্ন পূরণে কোনো প্রতিবন্ধকতা তৈরি না হয়। সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে এলে এই দুই বোনের স্বপ্ন পূরণ হবে।

তাদের বিষয়ে বাগেরহাট সরকারি পিসি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রইস সরদার বলেন, মেয়ে দুটি খুবই মেধাবী। অত্যন্ত গরিব পরিবারের তারা। ওদের বাবা রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। কেউ যদি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় তাহলে হয়তো তারা লেখাপড়াটা চালিয়ে যেতে পারবে।

About redianbd

Check Also

ব্রেকিং : এইমাত্র মোদির আগমন ঠেকাতে জুতা হাতে বিমানবন্দরে থাকবে হেফাজত

দিল্লিতে মুসলিম হ`ত্যা, নি`র্যাতনের প্রতিবাদে মুজিববর্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশে আগমন প্রতিহত করতে ফেনীতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.